আইডিয়ালে ভর্তি লটারিতে দুর্নীতি, অভিযানে দুদক

15
শিক্ষাবৃত্তি

২০১৯ শিক্ষাবর্ষের প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি লটারি প্রক্রিয়ায় জালিয়াতি ও দুর্নীতির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রাজধানীর মতিঝিলে আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে সোমবার দিনব্যাপী অভিযান চালিয়েছে দুদকের এনফোর্সমেন্ট ইউনিট।

দুদকের অভিযোগ কেন্দ্রে (হটলাইন-১০৬) উল্লিখিত অভিযোগ পেয়ে এনফোর্সমেন্ট ইউনিটের প্রধান সমন্বয়ক ও মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহম্মাদ মুনীর চৌধুরী এ অভিযান চালানোর নির্দেশ দেন। দুদকের সহকারী পরিচালক মো. মাসুদুর রহমান ও মোছা. সেলিনা আখতার মনি এবং উপ-সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জিন্নাতুল ইসলামসহ দুদকের পুলিশ ইউনিটের সদস্যরা এ অভিযানে অংশগ্রহণ করেন।

জানা যায়, রাজধানীর আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে ২০১৯ শিক্ষাবর্ষে প্রথম শ্রেণিতে সর্বমোট ৮৪০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। মতিঝিল ও বনশ্রী শাখায় বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভার্সনে এবং মুগদা শাখায় শুধু বাংলা ভার্সনে বালক ও বালিকা পৃথক ক্যাটাগরিতে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি হবে। এর মধ্যে আজ ছয়টি ক্যাটাগরির লটারি অনুষ্ঠিত হয় এবং মঙ্গলবার অবশিষ্ট চারটি লটারি অনুষ্ঠিত হবে।

সোমবার সকাল ৯ টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত মতিঝিল শাখার লটারি পর্যবেক্ষণ করে দুদক টিম। এতে তারা দেখতে পান, লটারির ফলাফল পেন্সিলের পরিবর্তে বলপেন/অমোচনীয় কালি দিয়ে লেখা। অন্যদিকে বালক ক্যাটাগরিতে নির্বাচিত তালিকার পাশাপাশি কোনো অপেক্ষমাণ তালিকা প্রকাশ করা হয়নি।

ভবিষ্যতে এ ধরনের অনিয়ম বন্ধে রাজধানীর মতিঝিল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষকে নির্দেশ দেয় দুদক টিম। এ ছাড়া দুদক টিম এই স্কুলের পার্শ্ববর্তী এলাকায় গড়ে ওঠা অসংখ্য ভর্তি কোচিং সেন্টারের প্রতিনিধিদের সমাগম নিয়ন্ত্রণ করে। দুদক টিমের উপস্থিতিতে এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা সন্তোষ প্রকাশ করেন।

এ অভিযান পরিচালনা প্রসঙ্গে এনফোর্সমেন্ট অভিযানের সমন্বয়কারী দুদক মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী বলেন, ভর্তি প্রক্রিয়া দুর্নীতির অভিশাপ থেকে মুক্ত রাখতে দুদক কঠোরভাবে নজরদারি করছে। কোনোভাবেই দুর্নীতির সুযোগ দেয়া হবে না।