অবশেষে উন্মুক্ত হলো ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের কলেজ ভর্তি

705
শিক্ষা সংবাদ

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে যেসব শিক্ষার্থী এখনো ভর্তি হতে পারেনি বা হয়নি তারা আবারও আবেদনের সুযোগ পাচ্ছে। তবে এই প্রক্রিয়ায় সরাসরি সংশ্লিষ্ট কলেজ বা উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সনাতন (ম্যানুয়াল) পদ্ধতিতে আবেদন করতে হবে।

১০ জুলাই থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত আবেদন করা যাবে। এরপর ১৮ জুলাই কলেজগুলো শূন্য থাকা আসনের বিপরীতে ভর্তিযোগ্যদের তালিকা প্রকাশ করবে। আর ভর্তির কাজটি হবে ২০ থেকে ২৭ জুলাই। ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের তালিকা শিক্ষাবোর্ডে জমা দিতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শূন্য আসনের তালিকা শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইটে দেওয়া আছে। আন্তশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব কমিটি আজ রোববার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

উল্লেখ, এর আগে অনলাইনে তিন ধাপে আবেদন নিয়ে ভর্তির কাজ হয়।

,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,

একাদশ শ্রেণিতে যেসব শিক্ষার্থী বিভিন্ন কারণে ভর্তি হতে পারেনি বা ভর্তির আবেদন করতে পারেনি তাদের ভর্তির সুযোগ দিতে চতুর্থ দফায় আবেদনের সুযোগ দেয়া হবে। জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহেই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে চতুর্থ ধাপের আবেদন চাওয়া হবে। রোববার (৩০ জুন) ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক ড. হারুন আর রশিদ এ তথ্য জানিয়েছেন।

অধ্যাপক হারুন আর রশিদ বলেন, একাদশে ভর্তিতে অনেক শিক্ষার্থী আবেদন করেনি। আবেদন করেও অনেক শিক্ষার্থী বিভিন্ন কারণে ভর্তি হয়নি। যেসব শিক্ষার্থী ভর্তি বঞ্চিত হয়েছেন তাদের ফের আবেদনের সুযোগ দেয়া হবে। তাদের সুযোগ দিতে ৪র্থ দফায় আবেদন গ্রহণ করা হবে।

তিনি আরও জানান, জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহেই বিজ্ঞপ্তি জারি করে শিক্ষার্থীদের এ বিষয়ে জানিয়ে ৪র্থ দফার আবেদন চাওয়া হবে। আশা করছি ভর্তি বঞ্চিতরা চতুর্থ দফায় আবেদনের সুযোগ পাবেন।

১ জুলাই থেকে একাদশ শ্রেণিতে ক্লাস শুরু হবে বলেও দৈনিক শিক্ষাকে নিশ্চিত করেছেন অধ্যাপক হারুন আর রশিদ।

———————————————————-

অবশেষে কলেজ ভর্তি প্রক্রিয়া উন্মুক্ত করলো আন্তঃশিক্ষা বোর্ড। এর ফলে ভর্তি বঞ্চিতরা দেশের যে কোনো কলেজে আসন খালি থাকা সাপেক্ষে ভর্তির সুযোগ পাবেন।

বৃহস্পতিবার (২৬ জুলাই) এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। সে অনুযায়ী ১-১৪ আগস্ট পর্যন্ত উন্মুক্ত ভর্তি কার্যক্রম চলবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক হারুন অর রশীদ বলেন, একাদশ শ্রেণির অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ হলেও এখনো চার হাজার ৬২৩ শিক্ষার্থী কোনো কলেজের জন্য মনোনীতি হয়নি। অনলাইনে একাদশে ভর্তি তিন দফায় আয়োজনের কথা থাকলেও চতুর্থ ধাপেও ভর্তিইচ্ছুরা মনোনীত হয়নি। তাদের কথা বিবেচনা করেই ভর্তি প্রক্রিয়া উন্মুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, কেউ কলেজ ভর্তি থেকে বঞ্চিত হবে না, এ সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে আগামী ১-১৪ আগস্ট পর্যন্ত দেশের যেসব কলেজে আসন খালি রয়েছে, সেখানে ন্যূনতম কাম্য জিপিএর ভিত্তিতে সরাসরি কলেজে গিয়ে শিক্ষার্থীরা ভর্তি হতে পারবে। পরবর্তীতে ২৬-২৮ আগস্টের মধ্যে সরাসরি ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের কলেজ থেকে নিশ্চয়ন করে স্ব-স্ব শিক্ষা বোর্ডে পাঠাতে হবে। আবেদনকারীদের বাহিরেও নতুন করে আরও অনেক শিক্ষার্থী ভর্তি হতে পারেন।

তিনি বলেন, বর্তমানে সারাদেশে ভালো মানের কলেজে আসন পাওয়া যাবে না। তবে কিছু ভালো প্রতিষ্ঠানে কাম্য জিপিএ বেশি চাওয়ায় মানবিক ও ব্যবসায়ী শাখায় কিছু আসন খালি রয়েছে। তবে বেসরকারি পর্যায়ে অনেক কলেজে পর্যাপ্ত আসন রয়েছে।

এদিকে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, এবার সারাদেশে এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষায় পাস করেছে ১৪ লাখ ৯৩ হাজার ১৮৭ শিক্ষার্থী। এ পর্যন্ত ১২ লাখ ৬০ হাজার ৮৬২ শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে। সেই হিসেবে দুই লাখ ৩২ হাজার ৩২৫ শিক্ষার্থী এসএসসির পর ঝরে পড়েছে।

অন্যদিকে, আবেদন করেও এখনও ভর্তির জন্য মনোনীত হয়নি চার হাজার ৬২৩ শিক্ষার্থী। তাদের অনেকেই প্রতিদিন শিক্ষা বোর্ডে গিয়ে ধর্ণা দিচ্ছেন। অথচ গত ১ জুলাই থেকে একাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু হয়েছে।